1. iliycharman7951@gmail.com : admin :
  2. support@wordpress.org : support :
কক্সবাজারে ১৪৮টি মন্ডপে উৎসবমুখর পরিবেশে হবে দুর্গাপূজা  - matamuhuri - মাতামুহুরী
শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:৫৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
চকরিয়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া নিয়ে সাবেক সাংসদ জাফরের নেতৃত্বে বিশৃঙ্খলা ও সাধারণ মানুষকে অস্ত্রের ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে শহরের ২টি প্রাইভেট হাসপাতালে অভিযান চকরিয়ায় ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতা সম্পন্ন চকরিয়া সোসাইটি বায়তুল মাওয়া শাহী জামে মসজিদ কমিটি গঠনে প্রশাসনের তিন সদস্যের কমিশন গঠন লামার ইয়াংছা বাজারে ভয়াবহ আগুন, কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি অনিয়ম দূর্নীতির আখড়া কক্সবাজার পল্লী বিদ্যূৎ অফিস চকরিয়ায় হাজিয়ান ও শাহ উমরাবাদ স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া-সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা সম্পন্ন মাতামুহুরী নদী থেকে অবৈধ বালু উত্তোলন তিনজন আটক, একমাসের কারাদন্ড, তিনটি ট্রাক জব্দ কক্সবাজার ইসলামিয়া মহিলা কামিল মাদ্রাসায় দুদকের অনুসন্ধান টিম মিথ্যা সংবাদের প্রতিবাদে ইউপি চেয়ারম্যান সংবাদ সম্মেলন

কক্সবাজারে ১৪৮টি মন্ডপে উৎসবমুখর পরিবেশে হবে দুর্গাপূজা 

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার
  • আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৪১৩ পঠিত
রোহিঙ্গা দুর্বৃত্ত, কিশোর গ্যাং, ছিনতাইকারি এবং ধর্মান্ধতার কারণে কক্সবাজারে এবারের দূর্গা পূজায় অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করেছেন জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ নেতারা। জেলার তিন উপজেলায় ১৮টি ঝুঁকিপূর্ণ পূজা মন্ডপের তালিকা করে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের কাছে দিয়েছেন তাঁরা। নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবক, পূজা মন্ডপগুলো সিসি ক্যামরার আওতায় আনা পরও শংকিত তাঁরা। তাই  আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতা কামনা করেছেন। আর জেলা পুলিশ জেলার ১৪৮টি পূজা মন্ডপেরে গুরুত্ব অনুযায়ী নিরাপত্তা নিশ্চিত করবেন বলে জানিয়েছেন।
বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কক্সবাজার লালদীঘিস্থ ব্রাক্ষ্ম মন্দিরে শারদীয় দুর্গাপূজা সুষ্ঠু, সুন্দর ও উৎসব মুখর পরিবেশে পালনের লক্ষ্যে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় কালে এসব কথা জানিয়েছেন পূজা উদযাপন পরিষদের নেতারা।
সংবাদ সম্মেলনে নেতার বলেন, উখিয়া রোহিঙ্গা অধ্যুষিত এলাকায় হওয়ায় সাম্প্রদায়িক ধর্মান্ধ একটি গোষ্টি ক্যাম্পের পাশে থাকা মন্ডপসহ ৭টি, কক্সবাজার শহরের কিশোর গ্যাং এবং ছিনতাইকারীদের কারণে বৈদ্যঘোনা, গোলদিঘিরপাড়, বিজিবি ক্যাম্পসহ ৫টি এবং পেকুয়া উপজেলার ৬টি মন্ডপকে ঝুঁকিপূর্ণ মনে করা হচ্ছে।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে পূজা উদযাপন পরিষদের নেতারা বলেন, আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে একটি গোষ্টি দেশে অস্থিরতা সৃষ্টি করতে তৎপর। তারা সুযোগ পেলেই সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বড় ধর্মীয় এ উৎসব দূর্গা পূজায় হামলার ধৃষ্টতা দেখাতে পারে।
কক্সবাজার একটি অসাম্প্রদায়িক জেলা দাবি করে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত বক্তারা আরো বলেন, প্রতিবছর প্রতিমা বির্সজনের সময় উপস্থিত পাঁচভাগের তিনভাগই ভিন্ন ধর্মের লোকজন উৎসবের আনন্দ উপভোগ করেন। এ ঐতিহ্য ধরে রাখতে সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন।
জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের দেয়া তথ্য মতে, এবারের ৩০৫টি মন্ডপে শারদীয় দূর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। যেখানে ১৪৮টিতে প্রতিমা ও ১৫৭টি ঘট পূজা। তবে, প্রতিমা পূজাকে ঘিরে দূর্গপূজার সকল কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। ইতিমধ্যে মহালয়ার শুভ আচার-অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শুরু হয়েছে শারদীয় দূর্গাপূজার ক্ষণগণনা। এবার দেবী দুর্গা গজে (হাতি) চড়ে মর্ত্যলোকে আসবেন। ৫ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে হিন্দু ধর্মালম্বীদের বৃহৎ এ উৎসব শেষ হবে।
জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি- সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত তালিকায় দেখা যায়, কক্সবাজার সদর উপজেলায় ১৭টিতে প্রতিমা পূজা ও ১১টি ঘট পূজা, ঈদগাঁও উপজেলায় ১৭টি প্রতিমা পূঁজা ও ৯টিতে ঘট পূজা, কক্সবাজার পৌরসভায় ১১টিতে প্রতিমা পূজা ও ১০টিতে ঘট পূজা, রামু উপজেলায় ২২টিতে প্রতিমা পূজা ও ১০টিতে ঘট পূজা, চকরিয়া উপজেলায় (পৌরসভাসহ) ৪৮টিতে প্রতিমা পূজা ও ৪৩টিতে ঘট পূজা, পেকুয়া উপজেলায় ৫টিতে প্রতিমা পূজা ও ৪টিতে ঘট পূজা, কুতুবদিয়া উপজেলায় ১৩টিতে প্রতিমা পূজা ও ৩২টিতে ঘট পূজা, মহেশখালী উপজেলায় (পৌরসভাসহ) ১টিতে প্রতিমা পূজা ও ৩০টিতে ঘট পূজা, উখিয়া উপজেলায় ৭টিতে প্রতিমা পূজা ও ৮টিতে ঘট পূজা, টেকনাফ উপজেলায় ৬টিতে প্রতিমা পূজা ও উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ১টিতে প্রতিমা পূজা অনুষ্ঠিত হবে।
মতবিনিময় সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন, জেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি উজ্জল কর।
সাধারণ সম্পাদক বেন্টু দাশের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মুজিবুল ইসলাম, সিনিয়র সাংবাদিক মুহাম্মদ আলী জিন্নাত, সাংবাদিক মমতাজ উদ্দিন বাহারি, শামসুল হক শারেক, পূজা কমিটির সহ-সভাপতি সাংবাদিক দীপক শর্মা দীপু প্রমূখ।
 কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার মো. মাহফুজুল ইসলাম বলেন,  জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের পক্ষ থেকে ঝুঁকিপূর্ণ পূজা মন্ডপের কথা বলা হয়েছে। এছাড়া আমরা ১৪৮টি মন্ডপকে গুরুত্ব বিবেচনা করে নিরপত্তা বলয় তৈরি করেছি। আমাদের তালিকা ও তাদের ঝুঁকির কথা বিবেচনা করেই নিরাপত্তা বলয় সাজানো হবে।
তিনি আরও বলেন, মন্ডপগুলো সরকারী নির্দেশনা মতে সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনবে উদযাপন পরিষদ। এছাড়া প্রতিটি মন্ডপে শৃঙ্খলা রক্ষার্থে পরিষদের নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী থাকবে। তার পাশাপাশি প্রশাসনের পক্ষ থৈকে পুলিশ, আনসার আর এর সমন্বয়ে স্ট্রাইকিং ফোর্স, সাদা পোষাকধারী পুলিশের লোকজন। এছাড়া মোবাইল ও পেট্রোল টিম সার্বক্ষনিক মনিটরিং করবে পূজা করবে। তাছাড়া গুরুত্ব বিবেচনা করে কিছু কিছু মন্ডপে অতিরিক্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হবে। এককথায় যেকোন ধরনের অনাকাঙ্খিত ঘটানো মোকাবেলা করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।
বিষয়টি আমরা গুরুত্বের সাথে নিয়ে কাজ করছি। দূর্গা পূজায় যেকোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে শৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও খবর

© All rights reserved © 2019 LatestNews
Theme Customized BY Iliaych