1. iliycharman7951@gmail.com : admin :
ফাঁসিয়াখালীর ‘ঘুনিয়া সেচ প্রকল্পের’ মালামাল চুরি - matamuhuri - মাতামুহুরী
মঙ্গলবার, ২১ মার্চ ২০২৩, ০১:৪৪ পূর্বাহ্ন

ফাঁসিয়াখালীর ‘ঘুনিয়া সেচ প্রকল্পের’ মালামাল চুরি

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২৯ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৭৭ পঠিত

জেলার বৃহৎ ঘুনিয়া সেচ প্রকল্পের মালামাল চুরি হওয়ায় প্রায় দুই হাজার একর জমিতে চাষাবাদ অশ্চিয়তা দেখা দিয়েছে। গত ২৮ডিসেম্বর বুধবার গভীর রাতে অফিস কক্ষের দরজার তালা ভেঙ্গে তিনটি পাম্প, তিনটি ফুটবাল্ব, চারটি সিলিং ফ্যান ও বিদ্যুতের সরঞ্জামসহ প্রায় দুই লাখ টাকার মালামাল চুরি করে নিয়ে যায় চোরের দল। এতে অন্তত দশ হাজার কৃষকের মধ্যে হাহাকার সৃষ্টি হয়েছে।

চুরি হওয়ার ঘটনায় ফাঁসিয়াখালী কুমারীছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি লি: এর সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম বাদী হয়ে চকরিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

স্থানীয় লোকজন ও কৃষকরা জানান, বিগত ২০১১ সালে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীনে কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলা ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের রাজারবিল এলাকায় এক কোটি পাঁচ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয় সেচ প্রকল্পটি। অনাবাদি কৃষি জমি ধান ও সবজি চাষের আওতায় আনতে দেশের দুটি স্থানে দুটি স্কীম চালু করেছিলেন বর্তমান সরকার। এরমধ্যে কুমিলায় ১টি ও কক্সবাজারের চকরিয়ায় ১টি। সেচ প্রকল্পটির অবস্থান ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের রাজারবিল এলাকায়। সেচ প্রকল্পটি ‘ঘুনিয়া সেচ প্রকল্প’ হিসেবে পরিচিত।

ঘুনিয়া সেচ প্রকল্পের অধিনে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের অন্তত দুই হাজার একর জমিতে চাষাবাদ করা হয়। প্রকল্পের আশাপাশ এলাকার ৫টি গ্রামের দেড় হাজার একর জমিতে ধান ও আরও পাঁচ’শ একর জমিতে শীতকালীন সবজি ও রকমারী ফসলের চাষাবাদ করে আসছিলো। ফাঁসিয়াখালী কুমারীছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি লি: এর তত্বাধানে ঘুনিয়া সেচ প্রকল্পটি পরিচালিত হয়ে আসছিলো।

প্রকল্পের আওতাধীন কয়েকজন কৃষক জানান, ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ঘুনিয়া, রাজারবিল, পুকপুকুরিয়া ও উচিতারবিল এলাকায় প্রায় দুই হাজার একর অনাবাদি জমি চাষের আওতায় আনতে ততকালীন চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন চৌধুরীর জোর প্রচেষ্ঠায় ঘুনিয়া সেচ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হয়েছিলো। এরপর থেকে এ অঞ্চলের অনাবাদি কৃষি জমি চাষের আওতায় চলে আসে। বদলে যায় কৃষকের ভাগ্য। এভাবে ১১ বছর ধরে ঘুনিয়া সেচ প্রকল্পটি কৃষি জমিতে পানি দিয়ে আসছিলো।
ধানী ও সবজি চাষ কমিয়ে এখন অনেকে তামাক চাষের দিকে ঝুকছেন বলে অভিযোগ করেছেন একাধিক কৃষক। তারা আরও জানান, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ধান ও সবজি চাষে নিরউৎসাহী করছেন। অতিরিক্ত মুনাফার আশায় কৃষকরাও তামাক চাষ করছেন।

ফাঁসিয়াখালী কুমারীছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি লি: এর সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম বলেন, গত ২৮ ডিসেম্বর গভীর রাতে ফাঁসিয়াখালী কুমারীছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতি লি: এর অফিসের দরজার তালা ভেঙ্গে তিনটি ২০ ঘোড়া পাম্প, তিনটি ফুটবাল্ব, চারটি সিলিং ফ্যান ও বিদ্যুতের সরঞ্জামসহ প্রায় দুই লাখ টাকার মালামাল চুরি করে নিয়ে যায় চোরের দল। অফিসের মূল্যবান মালামাল চুরি হওয়ায় দশ হাজার কৃষক পরিবারে মাঝে হাহাকার সৃষ্টি হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এসব মালামাল চুরি হওয়ার কারণে দুই হাজার কুষি জমিতে চাষাবাদে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। চুরির ঘটনায় চকরিয়া থানায় একটি লিখিত দিয়েছেন বলে জানান তিনি।

চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা চন্দন কুমার চক্রবর্তী জানান, ফাশিয়াখালীতে সেচ প্রকল্পের অফিসের মালামাল চুরি হওয়ার অভিযোগ এখনো পায়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও খবর

© All rights reserved © 2019 LatestNews
Theme Customized BY Iliaych