রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:২৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
এবার ঈদে ঘরমুখো মানুষদের যাত্রা পথ সহজ ও নিরাপদ করতে সড়কের পাশে অবৈধ হাটবাজার ও স্থাপনা উচ্ছেদ কক্সবাজারের ট্রেনের টিকিট যাচ্ছে কোথায়? চকরিয়ায় জেলে কার্ড দেয়ার প্রলোভনে টাকা আত্মসাত মৎস্য অফিসের তিন কর্মচারীর বিরুদ্ধে মামলা চকরিয়ায় অটোরিকশার নিচে চাপা পড়ে যুবক নিহত জেলা আওয়ামী লীগ নেতা কমরুউদ্দিনের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল চকরিয়ায় হত্যা মামলার আসামী গ্রেফতার চকরিয়ায় এক ওয়ার্ডের বরাদ্দের টাকা অন্য ওয়ার্ডের রাস্তার কাজ দেখিয়ে অর্থ আত্মসাতের পাঁয়তারা? বমুবিলছড়ি ইউনিয়নে গোদী নিলামে অনিয়মের অভিযোগ প্রথম আলো বন্ধুসভা চকরিয়ার বন্ধু বরণ ও ইফতার মাহফিল কক্সবাজার ট্রাফিক পুলিশের স্মার্ট কক্স-ক্যাব

বমুবিলছড়ি ইউনিয়নে গোদী নিলামে অনিয়মের অভিযোগ

এম জিয়াবুল হক :
  • সময় : রবিবার, ৩১ মার্চ, ২০২৪
  • ১০৪ পঠিত

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার বমুবিলছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের ১৪৩১ বাংলা সনের গোদী নিলামে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নীতিমালা লঙ্ঘন করে সর্বোচ্চ ডাককারী নির্বাচিত এক ব্যক্তিকে গোদী ইজারা না দিয়ে অবৈধ উপায়ে তাঁর পছন্দের একজন ইজারাদারকে গোদী পাইয়ে দিতে অপচেষ্টা চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ তুলেছেন ভুক্তভোগী। এ ঘটনায় রোববার ভুক্তভোগী সর্বোচ্চ ডাককারী ইজারাদার মনছুর উদ্দিন বাদি হয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের অবৈধ কর্মকাণ্ডে চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তরে লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছেন।

লিখিত অভিযোগে বমুবিলছড়ি ইউনিয়নের ২নম্বর ওয়ার্ডের মাইজপাড়া এলাকার মৃত মো.ইসমাইল এর ছেলে মনছুর উদ্দিন বলেন, তিনি ১৪৩১ বাংলা সনে বমুবিলছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক গত ২০ মার্চ প্রচারিত বিজ্ঞপ্তির আলোকে পরিষদের ১ নম্বর গোদী বমুর মুখ বাঁশ বাজার, ২ নম্বর গোদী বমু পুকুরিয়া খোলা খেয়াঘাট, ৩ নম্বর গোদী ছোট বমুর মুখ খেয়াঘাট ইজারা পেতে ফরম সংগ্রহ প্র্বুক জমা দিয়ে ইজারা (নিলাম) কার্যক্রমে অংশ নেন।
গত ২৮ মার্চ ইউনিয়ন পরিষদে নিলামে তিনি ( ভুক্তভোগী মনছুর উদ্দিন) তিনটি গোদী ৭ লাখ পাঁচ হাজার টাকায় সর্বোচ্চ ডাককারী হিসেবে মনোনীত হন। যদিও সরকার নির্ধারিত ইজারা মুল্য বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়নি।
মনছুর উদ্দিন অভিযোগ করে বলেন, নিলাম অনুষ্ঠানে পছন্দের লোক গোদী ইজারা না পাওয়ায় তাৎক্ষণিক ওইসময় ইউপি চেয়ারম্যান মনজুরুল কাদের কৌশল অবলম্বন করে নিলাম বাতিল ঘোষণা করে পুনরায় পরবর্তী তারিখ দিয়ে নতুন ইজারা বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছেন। এ অবস্থায় আমি নিরুপায় সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের কাছে বমুবিলছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের এইধরনের অনিয়মের বিরুদ্ধে আইনী প্রতিকার কামনা করছি।

জানা গেছে, ইউনিয়ন পরিষদের অধীনে একই গোদী সমুহ ১৪২৯ বাংলা সনে ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা, ১৪৩০ বাংলা সনে ৯ লাখ টাকায় আবু শামা নামের একজনকে ইজারা দেওয়া হয়। তবে গেল দুইবছরের গোদী নিলাম বাবত  ইউনিয়ন পরিষদের তহবিলে উল্লেখিত টাকা জমা হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয় সচেতন মহল।

অনিয়মের অভিযোগ অস্বীকার করে বমুবিলছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনজুরুল কাদের বলেন, প্রথম নিলামে পরিষদের কাঙ্ক্ষিত ইজারা মুল্য না উঠায় ওইদিনের নিলাম বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। একইদিন দ্বিতীয় দফায় ইজারা ডাক দেওয়া হয়েছে। যাতে পরিষদের কাঙ্ক্ষিত ইজারা মুল্য পাওয়া যায়।  এখানে আমার প্রচেষ্ঠা হচ্ছে পরিষদের রাজস্ব আয় নিশ্চিত করা।

ভুক্তভোগী সর্বোচ্চ ডাককারীর লিখিত অভিযোগটি পেয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.ফখরুল ইসলাম। তিনি বলেন, গোদী নিলামে ইউনিয়ন পরিষদের এখতিয়ার রয়েছে। কিন্তু ১৪৩১ বাংলা সনের দেওয়া নিলাম বিজ্ঞপ্তিতে ইউনিয়ন পরিষদ কতৃক ইজারা দেওয়া গোদীর কাঙ্খিত মুল্য নির্ধারণ করা হয়নি। সেখানে কিছুটা বিচ্যুতি দেখা যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু গোদী নিলাম নিয়ে  অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাই তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

https://www.facebook.com/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2018 News Smart
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com